ডিএসইর কাছে এমডির পদত্যাগের ব্যাখ্যা চেয়েছে বিএসইসি

সময়: Thursday, August 25th, 2022 11:34:54 am

নিউজবিজ প্রতিবেদক : দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারেক আমিন ভূঁইয়ার পদত্যাগ এবং কর্মচারীর পদোন্নতির পুরো তথ্য জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

বুধবার (২৪ আগস্ট) বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবায়াত-উল-ইসলাম ডিএসইর চেয়ারম্যান মোঃ ইউনুসুর রহমানকে এ বিষয়ে আলোচনার জন্য ডেকেছেন।

বিএসইসি একটি সূত্র জানিয়েছে, তারেক আমিনের পদত্যাগ এবং তার দ্বারা ডিএসইর কর্মচারীকে পদোন্নতির বিষয়ে বৃহস্পতিবারের (২৫ আগস্টের) মধ্যে ডিএসইকে ব্যাখ্যা দিতে নির্দেশ দিয়েছে বিএসইসি।

ডিএসইতে যোগদানের পর থেকে পরিচালনা পর্ষদের সাথে ধারাবাহিক মতবিরোধের কারণে তারেক আমিন ভূঁইয়া কাজে যোগদানের ১৩ মাসের মধ‌্যে পদত্যাগ করেন।

ডিএসইতে দীর্ঘ সময় ধরে কর্মকর্তাদের পদোন্নতি বন্ধ ছিল। চলতি সপ্তাহে ডিএসইর ১২৬ জন কর্মচারীর পদোন্নতিতে বেশ কয়েকটি সিনিয়র পদ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আর এর জেরে ডিএসইর এমডি তারিক আমিন ভূঁইয়া মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) রাতে পদত্যাগ করেন। পদত্যাগপত্রে ব‌্যক্তিগত কারণ উল্লেখ করা হলেও প্রকৃতপক্ষে ডিএসইর স্বতন্ত্র পরিচালকদের চাপ এবং কিছু শীর্ষ কর্মকর্তার অসহযোগিতার ফলে তিনি বাধ‌্য হয়ে পদত‌্যাগ করেছেন বলে বিশ্বস্ত সূত্র নিশ্চিত করেছে।

ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, ডিএসইর শীর্ষ কর্মকর্তাদের একটি অংশ বিভিন্নভাবে তারেক আমিন ভূঁইয়াকে অসহযোগিতা করে আসছিলেন। এছাড়া ডিএসইর স্বতন্ত্র পরিচালকদের পক্ষ থেকে বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছিলো। ফলে তারেক আমিন ভূঁইয়া যেভাবে চাচ্ছিলেন, সেভাবে কাজ করতে পারছিলেন না। তাই একপ্রকার বাধ‌্য হয়েই পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন তারেক আমিন ভূঁইয়া।

খোঁজ নিয়ে আরো জানা গেছে, ডিএসইর এমডি যাদেরকে পদোন্নতি দিয়েছেন, তাদের অনেকেই দীর্ঘ দিন ধরে পদোন্নতি বঞ্চিত ছিল। ফলে তারা ডিএসই থেকে চাকরি ছেড়ে দিতে চাচ্ছিলেন। পাশাপাশি তিনি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধির পক্ষেও ছিলেন। তাই ডিএসইর অধিকাংশ কর্মকর্তা তাকে বেশ পচ্ছন্দ করতেন। তবে পদোন্নতি ও বেতন-ভাতা বৃদ্ধির পক্ষে ছিলেন না ডিএসইর স্বতন্ত্র পরিচালকরা। এ জন‌্য ডিএসইর পর্ষদের একাংশ তারা কর্মে অসন্তুষ্ট ছিলেন।

এর আগে গত ২২ আগস্ট (সোমবার) ডিএসই থেকে ১২৬ জন কর্মকর্তার পদোন্নতি সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা দেওয়া হয়। এর মধ্যে জিএম থেকে সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) পদে ২ জন, ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) থেকে জিএম পদে ৩ জন, অ্যাসিসট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার (এজিএম) থেকে ডিজিএম পদে ৩ জন, সিনিয়র ম্যানেজার থেকে এজিএম পদে ১৯ জন, ম্যানেজার থেকে সিনিয়র ম্যানেজার পদে ১৫ জন, ডেপুটি ম্যানেজার থেকে ম্যানেজার পদে ২৯ জন, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ থেকে ডেপুটি ম্যানেজার পদে ২৯ জন ও এক্সিকিউটিভ থেকে ডেপুটি ম্যানেজার পদে ১০ জনকে পদোন্নতি দেওয়া হয়। এছাড়া জুনিয়র এক্সিকিউটিভ থেকে এক্সিকিউটিভ পদে ৬ জন, সিনিয়র অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট থেকে জুনিয়র এক্সিকিউটিভ পদে ১ জন, অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট থেকে সিনিয়র অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট পদে ২ জন, জুনিয়র অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট থেকে অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট পদে ১ জন ও জিএসএস থেকে জুনিয়র অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট পদে ৬ জনকে পদোন্নতি দেওয়া হয়।

গত বছরের ২৫ জুলাই ডিএসইর এমডি পদে তিন বছরের জন‌্য যোগদান করেন অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী তারিক আমিন ভুঁইয়া। যোগদানের পর থেকে তিনি ডিএসইতে ‘ফাইভ পি’ ফর্মুলা বাস্তবায়নের লক্ষ‌্যে কাজ শুরু করেন। এই ‘ফাইভ পি’ ফর্মুলার মধ্যে রয়েছে- পিপলস, প্রোডাক্ট, প্ল‌্যাটফরম, প্রসেস এবং পলিসি। এছাড়া ডিএসইতে ডাটা সেন্টার, সিসিএ ওয়ালেট, ব্লক চেইন টেকনোলজি, এক্সচেঞ্জ ট্রেডেড ফান্ড (ইটিএফ), অল্টারনেটিভ ট্রেডিং ফান্ড (এটিবি), রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টমেন্ট ট্রাস্ট (আরইআইটি), এনভারমেন্ট সোসাল গভার্নেন্স (ইএসজি), ইম্পেক্ট ফান্ড, স্ট্যাটআপ কোম্পানির জন্য নতুন বোর্ড চালুর কাজ শুরু করে তিনি।

নিউজটি ১২৩ বার পড়া হয়েছে ।