বাংলাদেশকে নিয়ে ভয় নয়, স্বপ্ন দেখার কারণ আছে: শিবলী রুবাইয়াত

সময়: Sunday, May 29th, 2022 3:50:09 pm

নিউজবিজ্ প্রতিবেদক: বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেছেন, বাংলাদেশকে নিয়ে ভয় নয়, স্বপ্ন দেখার অনেক কারণ আছে। শ্রীলঙ্কা ২ বিলিয়ন ডলারের সমস্যায় পড়েছে। আর আমরা মাসে শুধু একটা খাত থেকেই ২ বিলিয়ন ডলার পাই। কিন্তু একটি শ্রেণী কোনটার সাথে কোনটার তুলনা করে ভয় দেখিয়ে দেশকে অস্থির করে তুলেছে। এটা আমার বোধগম্য না। তাই বাংলাদেশকে নিয়ে আমাদের ভয়ের কোনো কারণ নেই। স্বপ্ন দেখার অনেক কারণ আছে।

রোববার (২৯ মে) বিএসইসির মাল্টিপার্পাস হল রুমে বাংলাদেশ একাডেমি ফর সিকিউরিটিজ মার্কেটস (বিএএসএম) আয়োজিত ‘বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনীতির প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ’ শীর্ষক লেকচার সেশনে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) চেয়ারম্যান ড. কাজী খলিকুজ্জামান এছাড়া বিএসইসির কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ ও বিএএসএমের ডিরেক্টর জেনারেল ড. তৌফিক আহমেদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেছেন, লেবানন শ্রীলঙ্কারও আগে দেউলিয়া হয়েছে। তারা অনেক আগে থেকেই ঋণ পরিশোধ করতে পারছে না। ওই দেশে কোনো পাওয়ার প্লান্ট নাই। সেটা কিন্তু কেউ বলে নাই। ওটা নিয়ে কারও কোনো ব্যাথ্যা ছিল না। হঠাৎ করে সবার শীলঙ্কার কথা মনে পড়ে গেছে। এরপরে তারা নানা ধরনের গুজব ছড়াতে শুরু করল। আরে আমরা নিজেরাই শ্রীলঙ্কাকে ২৫০ মিলিয়ন ডলার ঋণ দিলাম। যে সাহায্য দিল, সেই নাকি ওর মতো হয়ে যাচ্ছে। এটা হয় নাকি।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, অনেকে অর্থনীতি বুঝেও না বুঝার মতো কথা বলেন। তখনই বিষয়টি হয়ে যায় ক্ষতিকর। আমাদের ৫ বছর আগের তুলনায় রেমিটেন্স এখন কত এবং প্রবৃদ্ধি কত। করোনার সময়ও রেমিটেন্স বেড়েছে। আরও মজার বিষয় হচ্ছে, গত ১০ মাসে ৮ লাখ শ্রমিক বিদেশ গেছে। যার সুবিধা আমরা এখনো পাই না। সামনে তারাও রেমিটেন্স পাঠাবে। এতে করে রেমিটেন্স প্রবাহ বাড়বে।

তিনি বলেন, বিশ্বের অনেক দেশ যেখানে এখনো করোনা থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছে। তবে আল্লাহর রহমতে আমাদের সে অবস্থা নেই। যে কারনে সবাই বাংলাদেশ থেকে আমদানি করতে ঝুঁকছে। এ কারনে জাহাজে কন্টেইনার ভাড়া বেড়ে গেছে। নিশ্চয় চাহিদা বা রপ্তানি বৃদ্ধির কারনে এই ভাড়া বেড়েছে। আগে জাহাজ বাংলাদেশ থেকে ইউরোপে যাওয়ার পথে বিভিন্ন জায়গায় ট্রান্সজিট বা নোঙ্গর করতে হতো। কিন্তু এখন সরাসরি ইউরোপে যায়। এর কারন বাংলাদেশ থেকেই জাহাজ পণ্যে পরিপূর্ণ হয়ে যায়।

অন্যদিকে রপ্তানি বৃদ্ধির কারনে স্বাভাবিকভাবেই আমদানি বেড়েছে বলে জানান বিএসইসি চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, আমাদেরকে পণ্য রপ্তানির জন্য কাচাঁমাল আমদানি করতে হয়। যে কারনে আমদানিও বেড়েছে। অতএব এক্সপোর্ট বাড়লে ইমপোর্ট বাড়বেই।

তিনি বলেন, যে অর্থনীতির দেশে (বাংলাদেশ) বছরে ২ বিলিয়ন ডলার ঋণ পরিশোধ করতে হয়, সেখানে কেনো যে মানুষ ভয় পায়, তা আমি বুঝি না। আমরা রপ্তানির অর্থ বাদই দিলাম, বছরে ২২-২৪ বিলিয়ন ডলারতো পাই। এখান থেকে ২ বিলিয়ন ডলার ঋণ পরিশোধে দিতে পারব না। ধরলাম ৪-৫ বিলিয়ন ডলারই ঋণ পরিশোধে যাবে, তাতে কি আসবে যাবে আমাদের। বরং আমরা যদি হুন্ডি ব্যবসায়ীদেরকে ধরে ফেলতে পারি। তাহলে ৫-১০ বিলিয়ন ডলার বেচেঁ যাবে। কারন এরাই আমদানি-রপ্তানির সময় ওভারভয়েস-আন্ডারভয়েস এলসি খুলে বিদেশে টাকা পাচাঁর করে।

রাশিয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা নিয়ে বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, এমন একটা দেশের উপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হল, সেই দেশের কোন কষ্ট হচ্ছে না। কিন্তু বিশ্বের অন্যান্য দেশকে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। গম, জব, ভুট্টা জাতীয় পণ্যের যারা অধিকাংশ রপ্তানিকারক, তাদের খাদ্যের উপর যদি আপনি নিষেধাজ্ঞা দেন, তাহলে ওইসব দেশের কি অসুবিধা হবে। বরং ওরা আরও বেশি করে খাবে। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা দিয়ে সারাবিশ্বের সাপ্লাইচেইন নষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। এতে করে যেসব দেশে ওইসব পণ্যের সংকট, ওইসব দেশ ভোগান্তিতে পড়বে।

নিউজটি ২২১ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged